জনপ্রিয় ইসলামিক স্কলারদের ৪টি বই

জনপ্রিয় ইসলামিক স্কলারদের ৪টি বই

জ্ঞান বিজ্ঞানে নিজেকে দক্ষ করে তুলতে বই পড়ার বিকল্প নেই। বই মানুষের আত্মার উন্নয়ন করে, জ্ঞানের গভীরতা বৃদ্ধি করে। আমার মতে, জীবনে অনেক মুভি কিংবা সোস্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন শিক্ষনীয় লেখা আমরা খুব বেশি দিন মনে রাখতে পারি না। কিন্তু একটা বই সম্পূর্ণ পড়ে শেষ করলে তা পাঠক হৃদয়ে আজীবন অম্লান হয়ে থাকে। তাই বইকে আমি মনে করি জীবন্ত আর ডিভাইসগুলোকে মনে হয় ঝড় বস্তু। এখানে জনপ্রিয় কয়েকজন ইসলামী লেখকের ৪টি বই সম্পর্কে সংক্ষেপে আলোচনা করা হলো।

 

দোয়া বিশ্বাসীদের হাতিয়ার

এই বইটির মূল লেখক ড. ইয়াসির ক্বাদী যিনি ইয়াসির কাজী নামেও পরিচিত পাকিস্তানী বংশোদ্ভুত একজন আমেরিকান লেখক। তার লেখা এই বইটি বাংলায় অনুবাদ করেন বাংলাদেশের প্রসিদ্ধ ইসলামিক বই এর অনুবাদক মাসুদ শরীফ। আপনারা হয়ত জেনে থাকবেন, মাসুদ শরীফ একজন ইঞ্জিনিয়ার কিন্তু ইসলামের প্রতি প্রবল আকর্ষনে তিনি ফ্লোরিডা থেকে পুনরায় ইসলামিক স্টাডিজে অনার্স করেন। ২০১৯ সালে গার্ডিয়ান পাবলিকেশন্স থেকে তার অনুবাদ করা “দোয়া বিশ্বাসীদের হাতিয়ার” বইটি প্রকাশিত হয়। ২০২১ সালে বইটির ২য় সংস্করন বের হয়। ২১৬ পৃষ্ঠার এই বইটির মূল্য ২২০টাকা। বইটির আইএসবিএন নাম্বার ৯৭৮৯৮৪৮২৫৪১৭২।

দোয়া মানুষের জীবন পরিবর্তন করে ফেলতে পারে। তবে কখন কোন ক্ষেত্রে কি দোয়া করতে হবে তা নিয়ে অনেক বই আছে কিন্তু এই বইতে লেখক আলাদা করে দোয়ার মর্যাদা তুলে ধরেছেন। দোয়াকে মন্ত্রপাঠের মতো না পড়ে কিভাবে আদবের সাথে পড়তে হবে তা লিখেছেন। কি করলে দোয়া কবুল হবে আর কি করলে হবে না? কিভাবে দোয়া করলে কবুল হবে? দোয়ায় ভাগ্য পরিবর্তন হয় কিনা এসব বিষয় অত্যন্ত সুক্ষ্মভাবে লেখক তুলে ধরেছেন। যারা বেশি বেশি দোয়া করতে পছন্দ করেন বা দোয়া বিষয়ে উপরের কয়েকটি প্রশ্নের সুন্দর উত্তর খুজছেন তারা এই বইটি পড়তে পারেন। 

 

মেসেজ

“মেসেজ” বইটি লিখেছেন বাংলাদেশের তরুনদের আইডল বিশিষ্ট ইসলামিক স্কলার ড. মিজানুর রহমান আজহারী। এই বইটি তাঁর লেখা প্রথম বই। মিজানুর রহমান আজহারীকে চেনেন না এরকম কাউকে পাওয়া কঠিন । ১৯৯০সালে ঢাকায় জন্মগ্রহন করা এই লেখক আলিয়া মাদ্রাসায় পড়াশুনা করেন। তিনি দাখিল ও আলিম পরীক্ষায় সারাদেশে প্রথম হয়েছিলেন। এছাড়াও তিনি মিশরের বিখ্যাত আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চ শিক্ষা গ্রহন করেন, এজন্যে তাঁর নামের সাথে আজহারী শব্দটি যুক্ত করা। তিনি এম ফিল ও পি এইচ ডি করেন মালয়শিয়ার একটি ইসলামী ইউনিভার্সিটি থেকে। তাঁর লেখা এই বইটি প্রকাশিত হয় গার্ডিয়ান পাব্লিকেশন থেকে ২০২১ সালে। ২৯৬ পৃষ্ঠার এই বইটির মূল্য ২৭৫টাকা।

এই বইটির সম্পূর্ণ নাম “মেসেজ, আধুনিক মননে দ্বীনের ছোঁয়া”। এই বইতে লেখক ইসলামের সৌন্দর্য,পবিত্রতা ও বরকতের বিষয় তুলে ধরেছেন। ইসলামকে আমরা কঠিন করে ফেলেছি। ফলে তরুন প্রজন্ম ইসলামের প্রকৃত স্বাদ নিতে চায় না। কিভাবে তারা ইসলামকে উপভোগ করে দ্বীনদার হবে সে বিষয়ে অত্যন্ত সুন্দর ও সাবলীলভাবে তুলে ধরেছেন সময়ের অন্যতম সেরা ব্যক্তিত্ব মিজানুর রহমান আজহারী। অন্ধকারে ডুবে যাওয়া, ক্যারিয়ারের দুশ্চিন্তায় মজে থাকা প্রতিটি যুবকের এই বইটি পড়া উচিৎ।

 

প্রশ্নোত্তরে সীরাতুন্নবী (সাঃ)

“প্রশ্নোত্তরে সীরাতুন্নবী (সাঃ)” বইটি ড. মোঃ আব্দুল মান্নান এর লেখা মহানবী (সাঃ) এর জীবনের বিভিন্ন প্রশ্ন-উত্তর নিয়ে লেখা একটি বই। বইটি প্রকাশিত হয় গার্ডিয়ান পাবলিকেশন থেকে। প্রথম সংস্করন প্রকাশিত হয় ২০১৭ সালে। বাংলা ভাষায় লেখা ৪৪০ পৃষ্ঠার বইটির মূল্য ৩২০টাকা। আইএসবিএন নাম্বার ৯৭৮৯৮৪৯২৯৫৯৩৮। 

বইটিতে লেখক মানুষকে দুনিয়া ও আখিরাতে সফল হতে রাসূল সাঃ এর জীবন সম্পর্কে অধিক জ্ঞান অর্জনের কথা বলেছেন। মানুষ যত বেশি রাসূলের আদর্শ গ্রহন করে জীবনে এপ্লাই করবে, মানুষের জীবন তত সুন্দর হবে। কারন বিশ্ব মানবতার কান্ডারী, আসমান ও জমিনের মাঝে মহান স্রষ্টার শ্রেষ্ঠ মানব বিশ্বনবী মোহম্মদ (সাঃ)। যারা সিরাত প্রেমী, সিরাত নিয়ে যাদের মনে অনেক প্রশ্ন ঘুরপাক খায়, তারা বইটি পড়তে পারেন। এখানে লেখক খুবই সহজভাবে বিষয়গুলো তুলে ধরেছেন।

 

তাওয়াক্কুল

“তাওয়াক্কুল” বইটি লিখেছেন প্রখ্যাত ইসলামিক স্কলার ও গবেষক ড. ইউসুফ আল কারযাভী। মহান আল্লাহ পাকের উপর মানুষের বিশ্বাস ও ভরসার বিষয় তুলে ধরা এই বইটি প্রকাশিত হয় ২০২০ সালে গার্ডিয়ান পাবলিকেশন থেকে। বইটির আইএসবিএন নাম্বার ৯৭৮৯৮৪৮২৫৪৯১২। ১৪৬ পৃষ্ঠার এই বইটির মূল্য ১৮৫টাকা।

পৃথিবীতে সকল বিষয়ে মহান রবের উপর ভরসা করার কারনে কেবল মুসলিমরা অন্যরকম এক তৃপ্তি নিয়ে পৃথীবিতে বিচরন করে। একজন মুসলমান বিশ্বাস করে সে যেকোনো বিষয়ে তাঁর সাধ্যমতো চেষ্টা করবে কিন্তু ফলাফলের জন্যে আল্লাহ পাকের উপর ভরসা করবে। ফলাফল যাই হউক না কেন সেটাই মেনে নিবে। কারন মুসলিমরা বিশ্বাস করে আল্লাহ পাকের ফয়সালা আমাদের নিকট আনন্দের বা কষ্টের যাই হউক না কেন কেবল এর মধ্যেই কল্যান রয়েছে। লেখক দেখিয়েছেন কিভাবে বিপদে আপদে, জুলুম নির্যাতনে আল্লাহ পাকের উপর ভরসা রাখতে হয়। আর ভরসা করলে আর কাউকে ভয় পেতে হয় না। স্রষ্টার উপর জীবন সপে দিলে জীবন সুন্দর হয়, লেখক এই বিষয়টা খুব সুন্দর করে উপস্থাপন করেছেন। বাস্তব জীবনে যারা নানান সমস্যায় পড়ে  আল্লাহ পাকের উপর বিশ্বাস নিয়ে দ্বিধায় আছেন কিংবা সমস্যায় জর্জরিত হয়ে আছেন তারা বইটি পড়তে পারেন, ইনশাল্লাহ আপনার মধ্যে একটা তৃপ্তি আসবে। 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Main Menu