শায়খ আব্দুর রাজ্জাক বিন ইউসুফের ৫টি জনপ্রিয় বই

শায়খ আব্দুর রাজ্জাক বিন ইউসুফের ৫টি জনপ্রিয় বই

 

বহু আলেম ওলামার মিলনমেলা আমাদের এই প্রিয় মাতৃভূমি। এ সকল আলেমদের নিয়মিত কার্যক্রমে বাংলাদেশে এখনও ইসলামের অবস্থান বেশ শক্ত। এদেশে এখনও বেশ ভালোভাবেই ইসলামের চর্চা হয়। এজন্যেই সম্ভবত ঢাকা মসজিদের শহর। এক সময় এ অঞ্চলকে দ্বিতীয় মদিনা বলা হতো। ইসলামের ইতিহাসে বহু প্রথিতযশা আলেশ জন্মগ্রহন করেছেন উপমহাদেশে যারা সারা বিশ্বে ন্যায় ও সত্যের পক্ষে আলো ছড়িয়েছেন। শায়খ আব্দুর রাজ্জাক বিন ইউসুফ তেমনি একজন। এদেশে শিরক ও বিদআতের বিরুদ্ধে এক বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর আব্দুর রাজ্জাক বিন ইউসুফ। জীবনে বহু ঘাত প্রতিঘাত সহ্য করে তিনি তাঁর দায়িত্ব পালন করে গেছেন। আজকে আমরা এই শায়খের লেখা ৫টি বই সম্পর্কে আলোচনা করব। 

 

রিযিক্ব

এই বইটি হুজুরের সন্তান আব্দুল্লাহ বিন আব্দুর রাজ্জাকের লেখা একটি বই। তিনি একজন তরুন ইসলামিক স্কলার। তাঁর জন্ম গাইবান্ধায় হলেও স্থায়ী নিবাস রাজশাহীর চাপাইনবাবগঞ্জে। ছোটবেলা থেকেই প্রচন্ড মেধাবি ছিলেন। তিনি মদীনা ইউনিভার্সিটি থেকে পড়াশুনা করেছেন। তাঁর লেখা এই বইটি প্রকাশিত হয় নিবরাস প্রকাশনী থেকে ২০২১সালে। সম্পূর্ন বাংলা ভাষায় রচিত ৯২ পৃষ্ঠার এই বইটির মূল্য ৭০টাকা।

এই পৃথীবীতে সবারই একটা নির্দিষ্ট বয়স পার করার পরেই উপার্জনের লড়াইয়ে নামতে হয়। একটি সিকিউরড জীবনের জন্যে আমাদের কতই না আয়োজন । ক্যারিয়ারের চিন্তায় আমরা অনেক ভালো মন্দ ভুলে বসে থাকি। অজানা শংকা আমাদের লেগেই থাকে। ভোগবাদী এই পৃথিবীর সাথে তাল মিলিয়ে চলতে গিয়ে আমরা ভুলে যাই রিযিকের বিষয়ে আমাদের রব কি নির্দেশনা দিয়েছেন। হালাল হারামের বাচ বিচার না করে আমরা শুধু ইনকামের চিন্তা করি। হয়ত আমরা সেই টাকা ইনকামও করি। কিন্তু আদৌ সেই টাকা কি আমাদের শান্তি দেয় নাকি আমাদের জীবনকে জটিল করে তোলে এই বিষয় খুব সুন্দর করে লেখক বইটিতে ফুটিয়ে তুলেছেন। রিযিক নিয়ে প্রতিটি মানুষের টেনশন, ক্ষুধার খোরাক ও রোগের শেফা রয়েছে বইটিতে। প্রতিটি ভার্সিটি পড়ুয়া যুবক ও ক্যারিয়ারের চিন্তায় বুদ হয়ে থাকা ব্যক্তিদের বইটি একবার হলেও পড়ে দেখা উচিৎ।

 

আদর্শ পরিবার

ভীষন ব্যস্তময় কর্মজীবনের পাশাপাশি শুধু মানুষের হেদায়তের জন্যে ও অন্ধকারে ডুবে থাকা মানুষদের আলোর পথ দেখাতে শায়খ আব্দুর রাজ্জাক বিন ইউসুফ অনেকগুলো বই রচনা করেছেন। তাঁর লেখা প্রতিটি বই যেন শিরকের বিরুদ্ধে হুঙ্কার। তিনি বহু দ্বীনি মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা। তিনি একাদারে কওমী থেকে দাওরা হাদীস ও আলিয়া থেকে হাদীসে প্রথম শ্রেনীতে মাস্টার্স। তাঁর লেখা এই বইটি প্রকাশিত হয় ২০০৬ সালে। বইটির পৃষ্ঠা সংখ্যা ১৭৬ ও মূল্য ১৫০টাকা। 

রাসূলের আদর্শ বুকে ধারন করে কিভাবে পরিবার পরিচালনা করবে। কিভাবে সন্তানদের দ্বীনের পথে রাখবে। বিষয়গুলো এই বইতে তুলে ধরা হয়েছে। আল্লাহ পাকের শুকরিয়া, শায়েখের ৫ সন্তানের সবাই দ্বীনের দাঈ। প্রত্যেকে পড়াশুনা করছেন পৃথীবীর বিখ্যাত সব ইসলামিক ইউনিভার্সিটি তে। কিভাবে তিনি তাঁর প্রত্যেক সন্তানকে এমন আদর্শবান করতে পেরেছেন, আমরাও কিভাবে নিজেদের পরিবারকে এমন দ্বীনি নীতির উপর গড়ে তুলবো সে বিষয়গুলো শায়েখ এই বইতে উল্লেখ করেছেন। বক্তব্যে আমরা তাকে কঠোর দেখতে পাই বেশির ভাগ সময়, আসলে তাঁর এই কঠোরতা বহু পথভ্রষ্টকে পথ দেখিয়েছে। বইটি প্রত্যেক পিতামাতার ও যুবক যুবতীদের পড়ে দেখা উচিৎ।

তাফসীর কি মিথ্যা হতে পারে?

বইটি নিবরাস প্রকাশনী থেকে পাব্লিশড হওয়া আব্দুর রাজ্জাক বিন ইউসুফের একটি বই। তিনি হাদীস ও তাফসীরে প্রথম শ্রেনীতে কামিল পাস করেন। এছাড়া তিনি কওমী লাইনে ২ বার দাওরায়ে হাদীস পাস করেন। অনেক আলেমকে শুনা যায় দ্বীনের এই বিশিষ্ট দাঈ কে নিয়ে অবান্তর সমালোচনা করতে। অথচ এদেশে দ্বীনের দাওয়াতের কাজে একজন আব্দুর রাজ্জাক বিন ইউসুফ অনন্য। ধর্মীয় বিষয়ে তাকে কখনো আপোষ করতে দেখা যায়নি। দ্বীন প্রচার করতে গিয়ে বহু বাধার সম্মুখীন হয়েছেন কিন্তু তিনি সব সহ্য করেছেন মহান রবের মহব্বতে ও রাসূলের ভালোবাসায়। তাঁর লেখা এই বইটির ৩য় সংস্করন প্রকাশিত হয় ২০২১সালে। বইটি ১৬০ পৃষ্ঠার এবং মূল্য ১০০টাকা।

আমাদের দেশে অহরহ কুরআনের মাহফিল হয়। এসব মাহফিলে তাফসীর পেশ করা বক্তাদের শতকরা ৯৮ভাগই মুফাসসির নয়। অথচ এসব বক্তাদের মুফাসসির হবার কথা । ফলে এসব বক্তাদের দ্বারা ইসলামের ভুল ব্যাখ্যা হয়। এতে মানুষ ইসলাম সঠিকভাবে জানতে ব্যর্থ হয়। এসব ওয়াজ মাহফিল কিন্তু আমাদের দেশে কম হয় না। তবুও মানুষের মধ্যে আশানুরুপ পরিবর্তন দেখা যায় না। লেখকের মতে, এর কারন বক্তার ইসলামিক জ্ঞানের অভাব ও বক্তব্যে স্বেচ্ছাছারী কথাবার্তা, জাল হাদিস ও দুর্বল হাদীস। এসব কারনে ইসলামের আসল রূপ হারিয়ে যাচ্ছে। বইটি হাদিসের উপর বেশ গবেষনা ধর্মী একটি বই। 

আদর্শ পুরুষ

২০১২ সালে নিবরাস প্রকাশনী থেকে বের হওয়া একটি বই। বইটি লিখেছেন এদেশের প্রখ্যাত হাদিসবিদ শায়খ আব্দুর রাজ্জাক বিন ইউসুফ । হাদিসগ্রন্থে তাঁর অবদান অনন্য। বক্তব্যের সময় তিনি অনেক বেশি হাদিস বলতে পারেন। হাদিসশাস্ত্র নিয়ে তিনি অনেক গবেষনা করেছেন। জাল হাদিস, দুর্বল হাদিস এসব হাদিস বাদ দিয়ে তিনি মাহফিলে বক্তব্য দেন। এসব জাল হাদিস সম্পর্কে বলতে গিয়ে তিনি অনেক বাধার মুখে পড়লেও তিনি তাঁর কার্যক্রম বন্ধ করেননি। কাজ চালিয়ে গেছেন। ব্যস্ততার মাঝে বইও লিখেছেন যাতে অনেক বছর পরেও মানুষ সঠিক ইসলামকে খুজে পায়। বইটিতে পৃষ্ঠা রয়েছে ১৯১টি, মূল্য ৬৫টাকা।

আমাদের সমাজ এখনও পুরুষতান্ত্রিক। আল্লাহ পাক তাঁর পয়গম পাঠিয়েছেন নবীদের মাধ্যমে । নবীরা সবাই পুরুষ ছিলেন। তাই সমাজকে আদর্শ রূপ দিতে হলে পুরুষদের আদর্শবান হতে হবে। মানবিক গুনাবলী, নৈতিক ও নেতৃত্বের গুনাবলীসম্পন্ন পুরুষই আদর্শবান পুরুষ। প্রত্যেক পুরুষকে এসব গুনাবলী অর্জন করতে হবে। তাহলে সমাজে শান্তি শৃঙ্খলা বিরাজ করবে। জাতি,ধর্ম,বর্ণ নির্বিশেষে সবাই উপকৃত হবে। তবে ইসলামী পরিভাষায় আদর্শ পুরুষ হতে হলে অবশ্যই আল্লাহ ও রাসূলের নির্দেশ মোতাবেক হতে হবে। পৃথিবীতে অনেকেই আমাদের কাছে আদর্শবান হলেও সেটা যদি ইসলামীক দৃষ্টিকোন থেকে পরিপূর্ণ না হয় তবে তাকে আদর্শবান বলা যাবে না। লেখক বইতে আদর্শবান পুরুষের বৈশিষ্ট্য ও গুনাবলী বর্ননা করেছেন। কিভাবে আদর্শবান হওয়া যায় সেসব ব্যাখ্যা করেছেন। প্রত্যেক তরুন থেকে বৃদ্ধ পুরুষ সবারই বইটি পড়ে দেখা উচিৎ।

আইনে রাসূল (ছাঃ) দো’আ অধ্যায়

বিভিন্ন রকমের দোয়া ও দোয়ার ফজিলত নিয়ে লেখা শায়খ আব্দুর রাজ্জাক বিন ইউসুফের এই বইটির ৩য় সংস্করন প্রকাশিত হয় ২০১২সালে। বইটি পাবলিশড করে নিবরাস প্রকাশনী। সম্পূর্ণ বাংলা ভাষায় লিখা এই বইটির পৃষ্ঠা সংখ্যা ১৭৫। বইটির মূল্য নির্ধারন করা হয়েছে ১০০টাকা।

দোয়া করার আদব, দোয়া কবুলের সময় ও স্থান, দোয়ার অর্থ ও ফজিলত নিয়ে বইটি লেখা। আমাদের জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ইসলাম জড়িত। কিভাবে সবক্ষেত্রে ইসলামী নিয়ম মেনে মহান রব্বুল আলামিনের দয়া পাওয়া যাবে যা দোয়ার উদ্দেশ্য, সেই বিষয়গুলো এই বইতে তুলে ধরা হয়েছে। এছাড়া এই বইতে রয়েছে আমাদের প্রয়োজনীয় বহু রকমের দোয়া। 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Main Menu